শ্যালিকা সামসুন নাহারকে (২২) খুব ‘ভালবাসতেন’ ভগ্নিপতি এনামুল হক। তবে এ সম্পর্ককে খুব ভালো চোখে দেখতেন না বড় বোন রোকসানা। দুলাভাই ও শ্যালিকার ‘রহস্যজনক’ এ সম্পর্কের জের ধরে রোকসানার সংসারে সব সময় লেগে থাকত ঝগড়া-বিবাদ। এ কারণে বড়বোনের নানা ধরনের অপমান সহ্য করতে হতো ছোটবোনকে। কিন্তু শেষতক আর নিজেকে সামলাতে পারলেন না। অবশেষে আত্মহনননের পথকেই বেছে নিল ছোটবোন।
গতকাল দুপুরে নগরীর ৬ নম্বর রেলওয়ে কলোনিতে আত্মহত্যা করেছেন সামসুন নাহার। তাদের বাড়ি গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ কাউরি গ্রামে।

পুলিশ সূত্র জানায়, সামসুন নাহার গ্রামের বাড়ির কলেজ থেকে ডিগ্রি পাশ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার জন্য ৪ মাস আগে গ্রামের বাড়ি থেকে চট্টগ্রাম শহরে আসেন সামসুন নাহার। তার বাবার নাম আশরাফ আলী। চট্টগ্রাম শহরে এসে উঠেন রেলওয়ে কলোনিতে বড়বোনের বাসায়। ওই বাসায় বড়ভাই শাহাদাত হোসেনও সপরিবারে থাকতেন। কিন্তু ছোটবোনের সাথে ভগ্নিপতির সম্পর্কের জের ধরে দুই পরিবারের মধ্যে কয়েকমাস ধরে টানাপোড়েন চলে আসছিল। বড়ভাইয়ের সঙ্গে গত শুক্রবার ৬ নম্বর রেলওয়ে কলোনির আরেকটি বাসায় উঠেন সামসুন নাহার। এরপরও বড়বোনের অপমান-নির্যাতন থামছিল না। পুলিশ আরও জানায়, সামসুন নাহার আত্মহত্যা করলেও গতরাতে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বড়ভাই শাহাদাত হোসেন। এতে কাউকে আসামি করা না হলেও ভগ্নিপতি এনামুল হককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্র জানায়, গতকাল দুপুরে ৬ নম্বর রেলওয়ে কলোনির একটি বাসা থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় সামসুন নাহারকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার স্বজনরা। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ জানায়, ওই তরুণীর দুইহাতের রগ কাটা এবং গলায় ফাঁস লাগানোর চিহ্ন পাওয়া গেছে। এদিকে গতকাল ময়নাতদন্ত শেষে নিহতের লাশ গ্রামের বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী থানার এসআই কামরুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। আমরা লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেছি। ঘটনাটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।log

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here