image_85438
দিনাজপুরের ফুলবাড়ি রেলস্টেশনে দিনাজপুরগামী আন্তঃনগর একতা এক্সপ্রেস এবং খুলনাগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত অর্ধশত যাত্রী আহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার ভোর ৩টা ৩৫ মিনিটে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে দুই ট্রেনের ইঞ্জিন ও চারটি যাত্রীবাহী বগি দুমড়ে-মুচড়ে যায় ও লাইন থেকে ছিটকে পড়ে।

কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার ও পয়েন্টস ম্যানের দায়িত্বে অবহেলার জন্যই এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে প্রাথমিক তদন্তে নিশ্চিত হয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। দুর্ঘটনার পরপরই স্টেশন মাস্টার আবদুল হামিদ, একতা এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক আবদুল করিম, সহকারী চালক শরিফুল ইসলাম ও গার্ড আজিজুর রহমানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

লালমনিরহাট থেকে উদ্ধারকারী ট্রেন এসে উদ্ধার কাজ পরিচালনা করার পর গতকাল বিকাল ৫টার দিকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

আহত যাত্রীদের মধ্যে ১২ জনকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ফুলবাড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আমজাদ হোসেন নামের এক যাত্রীকে আশংকাজনক অবস্থায় দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রেলওয়ের পশ্চিম জোন রাজশাহীর মহাব্যবস্থাপক ফেরদৌস আলম, দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ শামীম আল রাজী, জেলা পুলিশ সুপার সারওয়ার শামীম মোরশেদ দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খুলনাগামী সীমান্ত এক্সপ্রেস ফুলবাড়ি স্টেশনের এক নম্বর লাইনে অবস্থান করছিল। স্টেশন কর্তৃপক্ষের ভুল সিগন্যালিংয়ের কারণে ঢাকা থেকে দিনাজপুরগামী একতা এক্সপ্রেস ট্রেনটিও একই লাইনে ঢুকে পড়লে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে দুই ট্রেনের ইঞ্জিন ও চারটি বগি দুমড়ে-মুচড়ে লাইন থেকে ছিটকে পড়ে। গণরোষ থেকে বাঁচতে দুর্ঘটনার পরপরই স্টেশন মাস্টার আব্দুল হামিদসহ অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী স্টেশন ছেড়ে পালিয়ে যান।

ঘটনা তদন্তে রেলওয়ের পক্ষ থেকে দুইটি ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে রেলওয়ের পশ্চিম জোন রাজশাহীর প্রধান প্রকৌশলী কাজী রফিকুল আলমের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন কমিটি রয়েছে। রেলওয়ের পাকশী-২ ডিভিশনের বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা সুজিত কুমার বিশ্বাসের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গঠিত চার সদস্যের তদন্ত কমিটিতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রায়হান উদ্দিনকে প্রধান করা হয়েছে। প্রত্যেকটি কমিটিকেই তিনদিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিতে বলা হয়েছে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here