ত্যাগের মহিমা, যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও আনন্দ ঊদ্দীপনার মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামে পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। বুধবার সকালে নামাজ আদায়ের মধ্য দিয়ে শুরু হয় কোরবানির ঈদের আনুষ্ঠানিকতা। এরপর নগরী ও জেলার বিভিন্নস্থানে প্রায় চার লাখ পশু জবাই দেয়ার মাধ্যমে চলছে কোরবানির ঈদের মূল আনুষ্ঠানিকতা। এবার সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে ১৪৯টি এবং জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ৮২টিসহ নগরীতে মোট ২৩৩টি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
চট্টগ্রাম মহানগরীতে সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে ঈদুল আজহার প্রথম ও প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে সকাল পৌনে ৮টায় জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ ময়দানে। এতে ইমামতি করেন মসজিদের খতিব ও জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মওলানা মুহাম্মদ জালালুদ্দিন আল কাদেরী। একই স্থানে সকাল সাড়ে ৮টায় আরও একটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে ইমামতি করেন জমিয়তুল ফালাহর জ্যেষ্ঠ ইমাম মাওলানা নূর মোহাম্মদ সিদ্দিকী।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকাল ৮টায় এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একই সময়ে আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
ঈদ জামাতে নামাজ আদায় করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী ডা. আফসারুল আমিন, মেয়র এম মনজুর আলম, বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি আবদুল্লাহ আল নোমান, সাংসদ নূরুল ইসলাম বিএসসি, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্ঠা মীর মো. নাছির উদ্দিন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ, নগর বিএনপির সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান, নগর জাতীয় পার্টিও আহ্বায়ক সোলায়মান আলম শেঠসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ ব্যবসায়ী-শিল্পপতি ও সাধারণ মুসল্লিরা। নামাজ আদায় শেষে বিবাদমান বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা সুন্দর বাংলাদেশ গড়তে ত্যাগের মহিমায় রাজনীতিকদের আত্মশুদ্ধি এবং ঐক্যবদ্ধ থাকার অঙ্গীকারের কথা বলেছেন।
এদিকে মঙ্গলবার রাত থেকেই ঈদ উপলক্ষে নগর ভবনসহ নগরীর বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি ভবনে আলোকসজ্জা করা হয়েছে। চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার, এতিমখানা এবং জেলা প্রশাসনের সমাজসেবা অধিদপ্তর পরিচালিত চট্টগ্রামের বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে বিশেষ খাবার পরিবেশন করা হচ্ছে।Eid

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here