15_Ghulam+Azam_Baytul+Mukarram

মেহেদী হাসানঃ-

 

যারা জানাজার লোক নিয়ে গর্ব করে তাদের উদ্দেশ্য বলতে চাই, মা ফাতেমার চাইতে কি জামাতের নেতারা জনপ্রিয় তা প্রমাণ করতে চাও? মা ফাতেমাকে কতজন কবর দিয়েছিল? শহীদে কারবালা ইমাম হুসাইন (রা:) জানাজা কতজন করেছিল? হযরত আলী (রা:) জানাজা তো দুরের কথা লাশও পাওয়া যায়নি । হযরত উসমানের জন্য কতজন মিলে জানাজা করেছিল? (উপমার জন্য নাম নেয়া, উনাদের সাথে কারও তুলনা হয়না ।)

আসল বিষয় হল জানাজা ও কবর মৃত মানুষের জন্য দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করতে হয় । দীর্ঘদিন ফ্রিজে রেখে লোক জড়ানোর কোন আবশ্যকতা নেই । গোলাম আযমের বড় ছেলেরা এসে জানাজাতে অংশ নিতে পারেনি। কিন্তু তাদের আসার অজুহাত দেখিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে লোক জড়ো করে জানাজার লোকের সংখ্যা দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে। খোদ আমাদের বগুড়া থেকেও আমাদের পরিচিত হুজুরেরা ঢাকায় গিয়েছিল । এগুলো বেদাত ।

সারাজীবন অপকর্ম করে টাকা দিয়ে লোক জড়ো করে, টাকা দিয়ে ফকিরদের কাঁদাকাঁটির অনুষ্ঠান করিয়ে লাভ কী? জাতির ইতিহাসে সবচেয়ে বড় খলনায়ক হল গোলাম আযম । আমাদের এলাকায় এক বড় ডাকাত মারা গিয়েছিল, তার জানাজাতে প্রচুর মানুষ হয়েছিল । সবাই বলছিল, এত মানুষের জানাজা পড়া আর কখনও কেউ দেখেনি । তাহলে কি আমাদের এলাকায় আর কেউ বা কোন ভদ্র মানুষ ছিলনা যিনি ঐ ডাকাতের চেয়ে ভাল?  কোন চেয়ারম্যান? কোন শিক্ষক .. কেউ ছিলনা? এরশাদ শিকদারের জানাজাতে তে লাখ লাখ মানুষ হয়েছিল, তাতে কি প্রমাণ হয় তিনি খুব ভাল মানুষ ছিলেন?

জানাজার লোক সমাগম কোনদিনই জনপ্রিয়তার নিরুপন হতে পারেনা । সরকার কোন বাঁধা দেয়নি, পুলিশ ছিল, এর কারণ যাতে কেউ হট্টোগোল না করতে পারে । যদি বায়তুল মোকাররমে নিষিদ্ধ করত তবে তো জানাজা ওখানে করতেই পারত না।

বঙ্গবন্ধুর জানাজার লোকসমাগম নিয়ে যারা কথা বলে সেই জালিমদের জিজ্ঞেস করুন, পাকিস্তানের জাতির পিতা কায়েদে মুহাম্মাদ আলী জিন্নাহর জানাজা তে জামায়াতে ইসলামসহ সকল ইসলামিক দল সমূহ বয়কট করেছিল। শিবিরের সেই ড্রিমল্যান্ড পাকিস্তানে কি কায়েদে আজম জিন্নাহর কদর কম আছে? নাকি সেদেশে মওদুদীকে জাতির পিতার মর্যাদা দেয়া হয়েছে, জানাজার কারনে?

বঙ্গবন্ধুর দেহকে তাড়াতাড়ি করে হেলিক্টারে করে গ্রামের বাড়ি নিয়ে গিয়ে রাতারাতি কয়েকজনকে দাঁড় করিয়ে কবরের ব্যবস্থা করা হয়। তার প্রেক্ষাপটের সাথে সকলের প্রেক্ষাপট এক হয় না।
রসূল (সা:) এক মুনাফিকের জানাজা করেছিলেন। আল্লাহ তা’লা রসূল (সা:) -কে জানালেন, ”তুমি যদি এই মুনাফিকের জন্য ৭০ বার দোয়া কর তবুও আমি কবুল করব না!”

যারা মওদুদিবাদী, তাদের জানাজাতে যতই লোক সমাগম হোকনা কেন, রসূল (সা:) দোয়ার চাইতেও বড় মর্যাদার বিষয় নয়। তাহলে এই রাজাকারের শিরোমনি মুনাফিক গোলাম আজমের জানাজার জন্য তাদের অনুসারিদের এত গর্ব কেন?

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here