Nancy p

জেলা পুলিশ বলছে, হরতালের গাড়ি ভাঙচুর মামলার আসামী ধরতে ন্যান্সির বাড়িতে অভিযান চালায় তারা।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী এই শিল্পী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “পুলিশের একটি দল রাত ২ টার দিকে আমার বাড়িতে আসে। সেসময় আমি বাড়ি ছিলাম না। বাড়িতে ছিলেন আমার ভাই সানি ও পরিবারের অন্য সদস্যরা। সানি মোবাইলে যোগাযোগ করার পর পুলিশের এসআই পরিচয়ে আলমগীর নামের একজন আমাকে বলেন, ‘আপনার বাড়িতে সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দিয়েছেন।’ এ সময় তিনি অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের নেত্রকোণা জেলা প্রতিনিধি লাভলু পাল চৌধুরী নেত্রকোণা জেলা পুলিশ সুপার জাকির হোসেনকে উদ্ধৃত করে বলেন, “হরতালের আগের দিন ২৬ অক্টোবর রাতে নেত্রকোণা সদরের সাতপাই এলাকায় বিএনপি-জামায়াত সমর্থকরা গাড়ি ভাংচুর করে। এই ঘটনায় সদর মডেল থানার পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে। এই মামলার আসামীরা ন্যান্সির ছোটগাড়ার বাড়িতে অবস্থান করছে- এমন সংবাদের ভিত্তিতে তার বাসায় অভিযান চালায় পুলিশ।”

nancy_blueপুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, “মামলার আসামী যেখানেই অবস্থান করুক না কেন, পুলিশ সেখানে অভিযান চালাতে পারে। অবশ্য ন্যান্সির বাড়িতে এ অভিযানে কোনো আসামীকে পাওয়া যায়নি। ”

ন্যান্সি বলেন, “পুলিশের সঙ্গে কথোপকথনের সময় আমি জানতে চাই, তাদের কাছে কোনো সার্চ ওয়ারেন্ট আছে কি না। তারা কোনো সার্চ ওয়ারেন্ট দেখাতে রাজি হয়নি। তখন আমি তাদের বাড়িতে ঢুকতে মানা করি। বলি, সার্চ ওয়ারেন্ট ছাড়া কারও বাড়িতে অভিযান সম্পূর্ন বেআইনি। পুলিশ বলে, প্রয়োজনে বাড়ির ছাদ ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করবেন তারা।”

ন্যান্সির সন্দেহ তার একটি ফেইসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করেই এ অভিযান হয়ে থাকতে পারে।

স্ট্যাটাসে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা ও খালেদা জিয়ার প্রশংসা করেন জনপ্রিয় এই শিল্পী।

এ স্ট্যাটাস দেবার পর অচেনা অনেক ফোন নাম্বার থেকে নিয়মিত হুমকি পাচ্ছেন বলে জানান ন্যান্সি।

ঘটনা নিয়ে ন্যান্সি ৩১ অক্টোবর জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে সকাল ১১ টায় এক সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here