ম্যাডাম,


সালাম জানবেন। আপনার ডাকা অবরোধ সফল করতে শাহবাগে যে বাসটিতে আগুন লাগানো হয় তাতে আমার বাবা আবদুস সালামের দেহের অনেক অংশ পুড়ে যায়। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেও অসহ্য কষ্ট নিয়ে তিনি কাটাচ্ছেন এক অভিশপ্ত জীবন।

আমার বাবাটা সরল ও বোকা ধরনের। ২০০১ সালে আপনাকে ভোট দেয়া ছাড়া কোন অপরাধ করেছে কিনা জানিনা। কিন্তু তারজন্য এত বড় শাস্তি দিল আপনার দলের লোকেরা?

প্রতিদিন বাসায় ফিরলে বাবার মুখ দেখে কেমন যেন শান্তি ও ভরসার আশ্বাস পেতাম। সেই মুখ যে এখন আর দেখি না ম্যাডাম! আমার বাবার মুখের দিকে এখন তাকালে মনে হয় চারপাশে শুধু মানষখেকো রাক্ষসের বাস। এই বুঝি আমাদেরও পুড়িয়ে মারবে!

আমার বাবাটা শীতে কম্বল গায়ে দিতে পারে না ক্ষতের জন্য। আবার ঘেমে গেলে কাপড় লেপ্টে যায়। আমার এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল কিন্তু কপালে আর সেটাও নাই। রিকশা না চালালে ৪ জনের সংসার আর চলবেনা।

ম্যাডাম, আপনাকে অনেকে দেশমাতা ডাকে। তাহলে নিরীহ সন্তানদের উপর আপনার কিসের ক্ষোভ! আপনার কাছে মিনতি করি, আমরা না খেয়ে থাকবো তবু আমার আগের বাবাকে ফিরিয়ে দিন। ফিরিয়ে দিতে না পারলে তাকে হত্যা করে কষ্টের জীবন থেকে মুক্তি দিন।

আল্লাহ আপনার মঙ্গল করুক এই দোয়া করি।

জুবায়ের মিয়া
১১৯/৩ পলাশনগর, মিরপুর, ঢাকা।

বিঃদ্রঃ জুবায়েরের পিতা আবদুস সালাম একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। চক বাজার থেকে মালামাল এনে মিরপুরে সরবরাহ করতো। চকবাজার থেকে আসার পথে শাহবাগে বাসে বোমা হামলা হলে তিনি অগ্নিদগ্ধ হন। তার শরীরের ১৫ শতাংশ পুড়ে যায়

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here