আসন্ন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান সাংসদদের মধ্যে ২ জন আগামী নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন পেয়েছেন।6666_23119_0আসন্ন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান সাংসদদের মধ্যে ২ জন আগামী নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন পেয়েছেন। আর দুটি আসনের বর্তমান সাংসদরা মনোনয়ন পাননি। পাঁচটি আসনের মধ্যে নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনটি গত নির্বাচনে মহাজোটের শরিক দল জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) থেকে বর্তমান সাংসদ গাজী গোলাম দস্তগীর, নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) থেকে বর্তমান সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনে বর্তমান সাংসদ আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাতের পরিবর্তে তার চাচা উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে বর্তমান সাংসদ সারাহ বেগম কবরীর পরিবর্তে সাবেক সাংসদ একেএম শামীম ওসমান এবং নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শুক্কুর মাহমুদকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।osmanএদিকে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের বর্তমান সাংসদ সারাহ বেগম কবরীর পরিবর্তে এ আসনের সাবেক সাংসদ একেএম শামীম ওসমানকে মনোনয়ন দেওয়ায় এর পক্ষে এবং বিপক্ষে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। শামীমপন্থি নেতারা তার মনোনয়নপ্রাপ্তিতে আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া এবং দলীয়প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। পক্ষান্তরে শামীম বিরোধীরা বলছেন, একজন খুনি-গডফাদারকে মনোনয়ন দেওয়ায় নির্বাচনে তাকে প্রত্যাখ্যান করবে ভোটাররা। ভোটারদের প্রতি শামীমবিরোধীরা সে আহ্বানই জানাবেন বলে এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।

তবে শামীম ওসমান মনোনয়ন পাওয়ায় ৪ আসনের কোথাও সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পক্ষে বা বিপক্ষে কোনো আনন্দ মিছিল বা বিক্ষোভ মিছিলের খবর পাওয়া যায়নি।শামীম ওসমানের মনোনয়ন প্রাপ্তিতে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দীপু বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা শামীম ওসমানকে মনোনয়ন দিয়েছেন। এখন আমাদের কাজ ভোটযুদ্ধে তাকে জয়ী করে এ আসনটি শেখ হাসিনাকে উপহার দেওয়া।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা বলেন, এখন আমাদের কাজ সর্বশক্তি নিয়োগ করে শামীম ওসমানকে জয়যুক্ত করা।ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী বলেন, বর্তমান সাংসদ আমাদের যে দুঃখ-কষ্ট দিয়েছে, শামীম ওসমানের মনোনয়ন প্রাপ্তিতে আমাদের আর কোনো দুঃখ-কষ্ট নেই।এদিকে ওসমান পরিবারের সমালোচক হিসেবে পরিচিত নারায়ণগঞ্জের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক রফিউর রাবি্ব তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, ওসমান পরিবার নারায়ণগঞ্জে প্রমাণিত খুনি পরিবার। আমরা বলে আসছিলাম, এ পরিবারের কাউকে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি থেকে যেন মনোনয়ন না দেওয়া হয়। সাধারণ মানুষ আওয়ামী লীগের এ সিদ্ধান্তে নিঃসন্দেহে ক্ষুব্ধ হবে।

সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের সদস্য সচিব কবি হালিম আজাদ তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, গডফাদার এবং খুনিকে মনোনয়ন দেওয়ায় তা নিঃসন্দেহে নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য দুঃখের এবং কষ্টের। তারা ত্বকীসহ অনেক খুনের সঙ্গে জড়িত। শুধু তাই নয়, নারায়ণগঞ্জে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, লুটপাটের মাধ্যমে এ শহরের পরিবেশকে তারা দূষিত করে তুলেছে। তাদের বিরুদ্ধে নির্বাচনে অবস্থান নেওয়ার জন্য এবং প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য ভোটারদের প্রতি আমাদের আহ্বান থাকবে।

এদিকে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য মনোনয়ন না পাওয়ায় বর্তমান সাংসদ সারাহ বেগম কবরী কোনো মন্তব্য করেননি। তবে শামীম ওসমান মনোনয়ন পাওয়ায় ফতুল্লায় কবরীর অনুসারী নেতাকর্মীরা চুপসে গেছেন। তারা শামীম ওসমানের মনোনয়ন নিয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here