joy
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় হরতালের নামে মানুষ পুড়িয়ে হত্যার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘যারা এভাবে শিশুদের পুড়িয়ে মারছে, বাসে আগুন দিচ্ছে তারা মানুষের জাত নয়। বিএনপি রাজনৈতিক দল তো নয়ই, তারা সন্ত্রাসী দল।’

গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে হরতালের সহিংসতায় অগ্নিদগ্ধ ও আহতদের দেখতে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছে এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন জয়। তিনি বলেন, ‘যারা এ জন্য দায়ী, তাদের কঠিন শাস্তি দেওয়া উচিত। আমরা শক্ত আইনগত পদক্ষেপ নেব।’ সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, জীবনেও এমন নৃশংসতা দেখেননি তিনি। এটা কোনো রাজনৈতিক দলের কাজ হতে পারে না। কোনো রাজনৈতিক দল এমন কাজ করতে পারে- সেটাও তার কাছে অবিশ্বাস্য।

আবেগাপ্লুত কণ্ঠে জয় বলেন, ‘বিএনপি হরতাল ঘোষণা করে আগুন দিয়ে আট বছরের শিশু সুমিকে পুড়িয়ে মেরেছে। আমারও একটি মেয়ে আছে। এই মাসে তার বয়স সাত বছর হবে। একজন বাবা হিসেবে এটি আমি কল্পনাও করতে পারি না। এগুলো দেখে আমার তো বিএনপির প্রতি ঘৃণা হচ্ছে।’

জয় বলেন, হরতালে প্রতিবাদের ভিন্ন কর্মসূচি থাকবে। যাত্রীভর্তি বাসে আগুন দেওয়া, ছোট ছোট শিশুদের পুড়িয়ে মারা- এগুলো কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি কিংবা হরতাল হতে পারে না। এগুলো সন্ত্রাস। এটা কারো রাজনৈতিক অধিকারও হতে পারে না। যারা এগুলো করছে, তাদের কোনো কারণও নেই। জয় বলেন, হরতালের নামে এমন নৃশংসতা একাত্তরের পর আমরা আর কোনো দিন দেখিনি। অতীতে এমন ঘটনা আর ঘটেওনি।

এক প্রশ্নের জবাবে জয় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তাঁরা নিজেরাও আতঙ্কিত বলে জানান। তিনি বলেন, ‘তবে সরকার মানুষের নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থ নয়। কেননা সরকার এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছে। যারা বোমা ও পেট্রল মারার হুকুম দিচ্ছে, বোমা বানাচ্ছে, পেট্রল ও বোমার সরঞ্জাম কেনার টাকা জোগান দিচ্ছে- তাদের সবার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’ এ প্রসঙ্গে সোমবার রাজধানীতে বিপুল পরিমাণ বোমা ও ককটেল এবং বোমা তৈরির সরঞ্জাম আটকের কথা তুলে ধরেন তিনি।

এর আগে জয় হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পৌঁছে অগ্নিদগ্ধদের অবস্থা দেখেন। তিনি তাদের সঙ্গে কথা বলেন ও চিকিৎসার খোঁজখবর নেন।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here