নির্বাচন বর্জন ও নির্বাচনকালীন সরকার থেকে সরে আসার সিদ্ধান্তে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদকে অটল রাখতে তৎপর রয়েছে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। এ ক্ষেত্রে ১৮-দলীয় জোটের শরিক জামায়াতে ইসলামীও পরোক্ষভাবে ভূমিকা রাখছে বলে বিএনপির নেতারা জানিয়েছেন।

বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র জানায়, একজন শিল্পপতি, কয়েকজন সাবেক সেনা কর্মকর্তা, জাতীয় পার্টির সাবেক ও বর্তমান দুজন নেতা এবং জামায়াতের সুহূদ দুজন অরাজনৈতিক ব্যক্তির মাধ্যমে বিএনপি এরশাদকে উৎসাহ জুগিয়ে যাচ্ছে। সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হলে অর্থ ও নির্দিষ্টসংখ্যক আসন ছেড়ে দেওয়া এবং বিএনপি ক্ষমতায় গেলে মামলা প্রত্যাহারসহ এরশাদের চাওয়াগুলো পূরণ করার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

এরশাদ গত মঙ্গলবার দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন। পরদিন বুধবার তিনি নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় থাকা তাঁর দলের মন্ত্রীদের পদত্যাগ ও দলের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার নির্দেশ দেন। এরশাদের এই সিদ্ধান্তকে বুধবার আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়ে স্বাগত জানিয়েছে বিএনপি।

অবশ্য এরশাদ শেষ পর্যন্ত তাঁর সিদ্ধান্তে অটল থাকবেন, তা এখনো বিশ্বাস করছেন না বিএনপির অধিকাংশ নেতা। তার পরও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণার পরপরই বিএনপির নীতিনির্ধারকেরা জাতীয় পার্টির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নন, কিন্তু নীতিনির্ধারণে ভূমিকা রাখেন এমন এক নেতা গতকাল বৃহস্পতিবার বলেন, এইচ এম এরশাদ নির্বাচন না করলে সরকার টিকতে পারবে না। তাই এরশাদকে তাঁর সিদ্ধান্তে অটল রাখতে বিএনপির পক্ষ থেকে যতটা সম্ভব সব কিছু করা হচ্ছে।

বিএনপির এই নেতা জানান, তিনি নিজে ইতিমধ্যে জাতীয় পার্টির কয়েকজন নেতা ও একজন মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তাতে তাঁর মনে হয়েছে, এরশাদের এই সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত এমনটা মনে করার সময় এখনো আসেনি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার এরশাদ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেওয়ার পর ওই দিন রাতেই এরশাদের জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কৃত নেতা কাজী জাফর আহমদের সঙ্গে কথা বলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ ছাড়া জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর একজন সদস্যের সঙ্গে কথা বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য।

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, এইচ এম এরশাদের সঙ্গে বিএনপির পক্ষ থেকে সব সময় যোগাযোগ রাখা হয়েছে এবং হচ্ছে। জাতীয় পার্টিও বিএনপির সঙ্গে নানা সময়ে কথা বলেছে। তিনি বলেন, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণার পেছনে এরশাদের ব্যক্তিগত ক্ষোভও কাজ করছে। বিএনপি চায় তিনি যেন নির্বাচন বর্জন করেন।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here