জনতার নিউজঃ

উঁই পোকার মত ঢুকছে রোহিঙ্গা

রাখাইন রাজ্যে সংঘটিত ঘটনা পরবর্তী সেনাবাহিনী এবং পুলিশী নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে রোহিঙ্গারা মাতৃভুমি ছেড়ে সহায় সম্বল রেখে পাশ্ববর্তী দেশ বাংলাদেশে ঢুকে পড়ছে। ২৪ আগষ্ট এক বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন রাখাইন রাজ্যের ৩০টি পুলিশ ক্যাম্পে একযোগে হামলা করে। হামলায় পুলিশ সদস্যসহ বেশ কয়েকজন নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। এরপর সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান এবং হামলাকারীদের ধরতে সেনা এবং পুলিশের নেতৃত্বে পরিচালিত যৌথ অভিযান এখনো অব্যাহত আছে।

অভিযানের নামে নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলিমদের ঘর বাড়িতে অগ্নি সংযোগ, পুরুষদের হত্যা, নারীদের ধর্ষণসহ অমানবিক নির্যাতন চলতে থাকে। প্রাণ রক্ষার্থে যে যার যার মত করে রোহিঙ্গারা দেশান্তরিত হতে থাকে। টেকনাফ সীমান্তের ৫৪ কিলোমিটার সীমান্ত পয়েন্টের বিভিন্ন এলাকা দিয়ে অল্প সংখ্যক রোহিঙ্গা রাতের আঁধারে অনুপ্রবেশ করেন। এসময় বিজিবি কঠোরভাবে তাদের প্রতিহত করে।

টেকনাফ সীমান্তে বিজিবির কঠোরতার কারণে রোহিঙ্গারা এতদিন উখিয়া ও নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করে। রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে টেকনাফস্থ বিজিবি সাময়িক সময়ের জন্য নাফ নদীতে মাছ শিকার পর্যন্ত বন্ধ করে দেয়। রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক আচরণ করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর থেকে টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে অহরহ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ অনুপ্রবেশ করছে। বৃহস্পতিবার ও জুমাবার দুই দিনে টেকনাফের হোয়াইক্যং, উলুবনিয়া, লম্বাবিল, উনছিপ্রাং, কাঞ্জরপাড়া, নয়াপাড়া, ঝিমংখালী, খারাংখালী, আলী খালী, লেদা, জাদীমুরা, সাবরাং ও শাহ পরীরদ্বীপ সীমান্ত দিয়ে দিনের বেলায় বাঁধাহীন ভাবে বানের মত রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকে পড়ছে।

এদিকে জুম্মাবার থেকে টেকনাফজুড়ে রোহিঙ্গাদের মাত্রাতিরিক্ত চাপ লক্ষ্য করা গেছে। যেখানে চোখ পড়ছে সেখানেই শুধু রোহিঙ্গা আর রোহিঙ্গা। স্থানীয়রাও সাধ্যমত অনুপ্রবেশকারী এসব রোহিঙ্গাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছে। হোয়াইক্যং ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার শাহ আলম জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন রোহিঙ্গাদের সাথে মানবিক আচরণ করতে বলেন তখন থেকে সকলের মাঝে এক ধরণের মানবিকতা দেখা দেয়। তিনি গত দুই দিনে প্রায় এক লক্ষ রোহিঙ্গা টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করেছেন বলে মনে করেন।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবু ছিদ্দিক আতিক ও উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম শাকের জানান, হোয়াইক্যং সীমান্ত দিয়ে উঁই পোকার মত হাজার হাজার রোহিঙ্গা দল বেঁধে ঢুকে পড়ছে। তারা মনে করেন, বৃহস্পতিবার ও জুম্মাবার দুই দিনে এক লাখ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করেছে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here