EBবিজয় দিবস উদযাপনকালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে শিক্ষকসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালীন কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ, দুই রাউন্ড গুলি ও ব্যাপক ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার জন্য উভয় গ্রুপ পরস্পরকে দায়ী করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, গতকাল সোমবার মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও বিভিন্ন বিভাগ মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য মুক্তবাংলায় মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। প্রশাসনের ফুল দেয়ার পর শিক্ষক সমিতিসহ বিএনপিপন্থিরা ফুল দেয়ার জন্য যায়। এসময় ছাত্রলীগ ও ছাত্রদল পরস্পরকে লক্ষ্য করে উত্তেজনাপূর্ণ শ্লোগান দিতে থাকে। এক পর্যায়ে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করলে ইটের আঘাতে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. ইকবাল হোছাইন ও বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদ আহত হন।

এসময় ছাত্রদল ছাত্রলীগকে ধাওয়া দিলে ছাত্রলীগও পাল্টা ধাওয়া দেয়। এতে উভয় গ্রুপে সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে ছাত্রদলের আঁখিরুল, মোহাইমিনুল ইসলাম সোহাগ, ছাত্রলীগের হালিম, সাইফুল, শিমূলসহ অন্তত ৮জন আহত হন। আহতদের বিশ্ববিদ্যালয় ও কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় দুই রাউন্ড গুলি ও কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গেছে। এক পর্যায়ে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা প্রশাসন ভবনে ভাংচুর এবং বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত প্রীতি ভলিবল প্রতিযোগিতার মঞ্চ ভেঙ্গে দেয়। পরে শিবিরের নেতা-কর্মীরা মিছিল বের করলে ক্যাম্পাসে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here