529dc40e83d62-jollaআপনার অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর স্মার্টফোনটিতে বিকল্প কোনো অপারেটিং সিস্টেমের কথা ভাবতেই পারেন। নকিয়ার সাবেক কর্মীরা মিলে ইয়োলা নামে যে প্রতিষ্ঠান গড়েছেন সেখান থেকেই এসেছে অ্যান্ড্রয়েডের বিকল্প ওএস। এর নাম ‘সেইলফিশ’। ব্যবহারকারী অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে ‘সেইলফিশ’ ইনস্টল করতে পারবেন।
ইয়োলা কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি তাদের তৈরি স্মার্টফোনে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের সুবিধা রয়েছে বলে জানিয়েছেন। ভবিষ্যতে অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে তাদের তৈরি ‘সেইলফিশ’ ওএস ইনস্টল করার জন্য উন্মুক্ত করার পরিকল্পনাও করছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।
সম্প্রতি ফিনল্যান্ডের ওয়েবসাইট তালুসেলামাকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ইয়োলার প্রধান নির্বাহী টমি পাইনিমাকি জানিয়েছেন, অ্যান্ড্রয়েড ফোন ও অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর ট্যাবলেটে অ্যান্ড্রয়েডের পাশাপাশি সেইলফিশ ব্যবহার করা যাবে।
২০১০-১১ সালের দিকে নকিয়া-ইনটেলের মিগো সফটওয়্যার আর সিমবিয়ান অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোন তৈরি করত ফিনল্যান্ডের মোবাইল নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান নকিয়া। উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম-নির্ভর স্মার্টফোন তৈরির কারণে সিমবিয়ান ও মিগো সফটওয়্যার প্ল্যাটফর্ম ছেড়ে দিয়েছে নকিয়া। নকিয়ার মিগো সফটওয়্যার ও এন৯ স্মার্টফোন তৈরির পেছনে যে দলটি কাজ করছিল, সে দলটিরই সাবেক কয়েকজন কর্মকর্তা মিলে প্রতিষ্ঠা করেন ‘ইয়োলা’। এ প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি ‘ইয়োলা’ নামে সেইলফিশ অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর স্মার্টফোন বাজারে এনেছে। ‘ইয়োলা’ স্মার্টফোনটিতে নানা সুবিধার মধ্যে রয়েছে ৪.৫ এইচডি পর্দা, ডুয়াল কোর প্রসেসর, মাইক্রো এসডি কার্ড সমর্থন। এই স্মার্টফোনটিতে আট মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা রয়েছে।

ইয়োলার তৈরি নতুন এই ওএসে গুগলের তৈরি মোবাইল ফোনের মুক্ত ওএস অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস ব্যবহার করা যাবে। অর্থাত্ সেইলফিসচালিত স্মার্টফোনের ব্যবহারকারীরা অ্যান্ড্রয়েডের সব ধরনের অ্যাপস ব্যবহার করতে পারবেন খুব সহজেই।

ইয়োলা প্রসঙ্গে টমি পাইনিমাকি জানিয়েছেন, অর্ধেকের বেশি অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারী তাদের সাশ্রয়ী স্মার্টফোন বা ট্যাবলেটকে নতুন সংস্করণের অ্যান্ড্রয়েড ওএসে আপগ্রেড করেন। এই সুযোগটি গ্রহণ করতে চাইছে ইয়োলা। বেশ কিছু ওয়েবসাইট থেকে এসব সফটওয়্যার ডাউনলোড করা হয়। সেইলফিশ অপারেটিং সিস্টেম এ ধরনের ওয়েবসাইটে উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে এবং বিভিন্ন অ্যান্ড্রয়েড পণ্যের উপযোগী করে তোলা হবে।

পাইনিমাকি বলেছেন, অপারেটিং সিস্টেম থেকে কোনো লাভ করার পরিকল্পনা করছে না প্রতিষ্ঠানটি বরং অ্যাপস, সার্ভিস ও বিজ্ঞাপন থেকে আয়ের পরিকল্পনা করছে ইয়োলা।

বাজার বিশ্লেষকেরা বলছেন, অ্যান্ড্রয়েডের বাজার দখল করতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এরইমধ্যে পরিকল্পনা শুরু করেছে। সেইলফিশ ছাড়াও উইন্ডোজ ফোন অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে মাইক্রোসফট অ্যান্ড্রয়েডের বাজার দখল করতে চাইছে। এরই মধ্যে তাইওয়ানের স্মার্টফোন নির্মাতা এইচটিসিকে অ্যান্ড্রয়েডের পরিবর্তে উইন্ডোজ ফোন অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করার প্রস্তাবও দিয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। এ ছাড়াও বিভিন্ন অ্যান্ড্রয়েড ফোনে উবুন্টু মোবাইল সংস্করণ ইনস্টল করার সুবিধাও রয়েছে।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here