র‌্যাব ব্যারাকে বোমা বিস্ফোরণের পর আশকোনা থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে হানিফ মৃধা নামে এক যুবককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছিল র‌্যাব। পরে র‌্যাবের হেফাজতেই তার মৃত্যু হয়েছে।

র‌্যাব জানিয়েছে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ওই যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার ওই হামলার পর কাউকে গ্রেফতারের কথা জানানো হয়নি। শনিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে লাশ আসার পর বিষয়টি প্রকাশ পায়। র‌্যাব হেফাজতে নিহত হানিফ মৃধার বাড়ি বরগুনায়।

এ বিষয়ে র‌্যাবের মিডিয়া অ্যান্ড লিগ্যাল উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান সাংবাদিকদের  বলেন, ঘটনার পর আশকোনা থেকে হানিফ মৃধা নামে একজনকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়।

পরে বিকাল ৪টার দিকে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে সে অসুস্থবোধ করায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।

র‌্যাব হেফাজতে হানিফ মৃধার মৃত্যুর ঘটনায় শুক্রবার গভীর রাতে বিমানবন্দর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, বিস্ফোরণের ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে শুক্রবার বেলা ৪টার দিকে বিমানবন্দর রেলস্টেশনের পাশে মুনমুন কাবাব ঘরের পেছনের বাগান থেকে তাকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়।

ওই যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করলে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। দ্রুত তাকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে বিকালেই তিনি মারা যান।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্র জানায়, শনিবার বিকাল ৫টার দিকে তার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে আনা হয়।
আধা ঘণ্টার মধ্যেই ময়নাতদন্ত শেষ করে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা হাসপাতাল থেকে চলে যান। তারা সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, র‌্যাব সদস্যরা বলেছেন- হৃদরোগে হানিফের মৃত্যু হয়েছে। এ কারণে হার্টের অংশ বিশেষ ও ভিসেরার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার জুমার নামাজের সময় আশকোনায় র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে বোমা হামলা চালানো হয়। এতে বোমা বহনকারী এক যুবক নিহত এবং দুই র‌্যাব সদস্য আহত হন।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here