khanআমরা কূপের ব্যাঙ নই, আমাদের দৃষ্টি প্রসারিত।’ আজ রোববার দুপুরে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে পানগাঁও কনটেইনার পোর্ট প্রাঙ্গণে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এ মন্তব্য করেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ও বিআইডব্লিউটিএর যৌথ উদ্যোগে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভাটি আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে নৌমন্ত্রী বলেন, ‘এ পোর্ট সচল করতে হলে ব্যবসায়ী মহলের সহযোগিতা দরকার। ক্ষমতায় আসার পর আন্তর্জাতিক ব্যবসা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রাম বন্দরকে আধুনিকায়ন করেছেন। একসময় চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজের জট ছিল। সেই জট এখন আর নেই।’

শাজাহান খান বলেন, ‘পানগাঁও কনটেইনার টার্মিনালকে সচল করার জন্য তিনটি জাহাজ সংগ্রহ করা হয়েছে। শ্রমিক যেন অসন্তুষ্ট না হয়, সে জন্য সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে। মংলা বন্দরে প্রথম পরিদর্শনে গিয়ে আমি দেখি, সেটা মৃতপ্রায়। বর্তমান অবস্থায় মংলা বন্দর ঘুরে দাঁড়িয়েছে। একসময় মংলা বন্দরের মালামাল ও সরঞ্জাম বেনাপোল বন্দরে ভাড়া দেওয়া হতো। কিন্তু এখন ভাড়া দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। বরং মালামাল ও আধুনিক সরঞ্জামের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’ পানগাঁও কনটেইনার পোর্টটি চালু করতে ব্যবসায়ী মহলসহ সবার সহযোগিতা প্রয়োজন বলে মত দেন নৌমন্ত্রী।

তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সহসভাপতি এস এম মান্নান বলেন, ‘হরতাল অবরোধের সময় ৫০ থেকে ৭০ হাজার টাকা করে ট্রাক ভাড়া দিতে হয়। আমাদের দাবি দ্রুত এ পোর্ট সচল করা।’

মতবিনিময় সভায় আই কেয়ার এজেন্সির কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির বলেন, ‘এ বন্দর দিয়ে প্রথমে আমরা ১৫ কনটেইনার মালামাল নিয়ে আসি। কিন্তু পোর্ট এলসি দিচ্ছে না। ব্যাংক থেকে কোনো সহযোগিতাও পাচ্ছি না। সেলফ প্রমোশন ও সিএনএফ বাদ দিয়ে মালামাল বহন করতে সমস্যা হয়। এ ব্যাপারে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন।’

বিকেএমইএর প্রথম সহসভাপতি মো. হাতেম বলেন, ‘পানগাঁও চালু না হওয়ায় আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি। এটি চালু না হলে আমদানি-রপ্তানির ক্ষেত্রে ব্যাপক ক্ষতি হবে। রপ্তানি গতিশীল করতে হলে বন্দরের গতি বাড়াতে হবে। নারায়ণগঞ্জ থেকে পানগাঁও এলাকায় সরাসরি ফেরি ব্যবস্থা করার দরকার।’

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য দেন বিদ্যুত্, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদ, সাংসদ হাজি মো. সেলিম, বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান শামসুদ্দোহা খন্দকার প্রমুখ।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here