আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রায়ের আগে সংবাদ সম্মেলন পৃথিবীতে বিরল। বাংলাদেশেও এমনটা এর আগে হয়নি। তিনি রায়ের আগে সংবাদ সম্মেলন করে, মিথ্যাচার ও উস্কানীমূলক বক্তব্য দিয়ে আদালতের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন।
 
বুধবার সন্ধ্যায় ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। এর কিছুক্ষণ আগে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। 
 
বৃহস্পতিবার সকালে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। মূলত সংবাদ সম্মেলনে রাখা খালেদা জিয়ার বক্তব্যের জবাব দিতেই পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে আসেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।
 
খালেদা জিয়ার উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, এতো হতাশ হওয়ার কী আছে! এই রায়ের পর, আপিল করার ব্যাপার আছে। তা না হলে, রাষ্ট্রপতি আছেন। আমাদের রাষ্ট্রপতি তো উদার, তার কাছে ক্ষমা চাইলে তিনি মাফ করে দিতে পারেন। আমি মনে করি, তিনি মাফ করে দিবেন।
 
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলনে বেগম খালেদা জিয়া বিএনপি নেতাকর্মীদের বলেছেন,  সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনীতে তথা সমস্ত প্রশাসনিক জায়গায় তাদের লোক আছে তারা যেন ভয় না পায়। আমার কথা হল-তিনি এবং তার নেতারা তাহলে কেনো ভয় পাচ্ছেন? এসব কথা বলা যে, অন্যায়। এটাও কী তিনি বুঝেন না?
 
ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেত্রী বলেছেন তার মামলার রায় প্রধানমন্ত্রী লিখে দিয়েছেন। এটা কী আদালত অবমাননা নয়? তিনি বলেছেন, আদালত যদি ইতিবাচক রায় দেন তাহলে মেনে নেবেন না হলে আন্দোলন করবেন। এই বক্তব্য রায়ের আগে দেয়া কী আদালত অবমাননা নয়?
 
খালেদা জিয়ার প্রতি অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, রায়কে আইনিভাবে মোকাবেলা না করে, আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন না করে, আইনিভাবে মোকাবেলার কথা না বলে; অপরাজরনীতির কৌশল অবলম্বন করছেন। নিজের অপরাধকে ঢাকার জন্য পুরো জাতিকে জিম্মি করে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন।
 
তিনি বলেন, আপনি নিরাপরাধী হলে আদালতে গিয়ে প্রমাণ করুন। আদালত তো কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না। আদালত অপরাধীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে থাকে।
 
ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণের রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে জানমালের নিরাপত্তা দিতে আওয়ামী লীগ বদ্ধ পরিকর। আমরা কোনো প্রকার ষড়যন্ত্রে বিশ্বাস করি না, প্রতিহিংসা করি না। কাউকে তা করতেও দেওয়া হবে না। তাদের বোঝা উচিত যে, ষড়যন্ত্র করে, সংবাদ সম্মেলনে মায়া-কান্না করে সহিংসতা করে দুর্নীতি ঢাকা যায় না।
 
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, পুলিশের কাছে কিছু তথ্য আছে। সে অনুযায়ী ইতোমধ্যে প্রশাসন কাজ করছে। কোনো রকম অন্যায় আচরণ সহ্য না করার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছি। এসময় বিএনপির বিরুদ্ধে ঐক্য গড়ে তোলার জন্য দেশের জনগণের প্রতি আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।
শেয়ার করুন
  • 29
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here