Report

 

আত্মবিশ্বাসে শুরু আজ নতুন লড়াই

খুলনা শহর থেকে স্টেডিয়ামটা একটু দূরে। ফলে শহরে বসে এমনিতে বোঝার কথা নয়, শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে আজ মঙ্গলবার থেকে বাংলাদেশ-পাকিস্তান টেস্ট শুরু হচ্ছে। তবে দূরত্বের এই ব্যবধান ঘুচিয়ে দিয়েছে প্রচারণা।

শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে ‘বৈকালী’ স্টেডিয়াম পর্যন্ত একটার পর একটা তোরণ, বিশাল করে খেলোয়াড়দের ছবি। আর রাস্তার দুই ধারে বিশাল বিশাল বিলবোর্ডে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের ছবি। সবগুলোতে একটাই কথা—ওয়ানডে সিরিজ জয়ে জাতীয় দলকে শুভকামনা, এবার টেস্টেও দেখিয়ে দেয়ার পালা!

এই চ্যালেঞ্জ নিয়েই আজ থেকে খুলনা আবু নাসের স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাওয়া টেস্টে পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ দল। মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বাধীন দুই টেস্টের সিরিজের প্রথমটির খেলা প্রতিদিনের মতোই আজ শুরু হবে সকাল ১০টা থেকে।

ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে যেমনই হোক, টেস্টে পাকিস্তান এখনো দারুণ শক্তিশালী ও অভিজ্ঞ একটা দল। সর্বশেষ দুই সিরিজের মধ্যেই তারা অস্ট্রেলিয়াকে একবার হোয়াইট ওয়াশ করে এসেছে। তারপরও বাংলাদেশ যে পাকিস্তানকে শুরু থেকে এক ধরনের ‘চ্যালেঞ্জ’ ছুঁড়ে দিয়ে আজ মাঠে নামতে পারছে, তার কারণ ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাস।

ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে ১৬ বছর পর হারিয়েছিলো বাংলাদেশ। পরের ৫ দিনের মধ্যে প্রতিটি ম্যাচে পাকিস্তানকে নাস্তানাবুদ করে হোয়াইট ওয়াশ করেছে মাশরাফির দল। এই ধারা ধরে রেখে উড়িয়ে দিয়েছে তারা সফরকারীদের একমাত্র টি-টোয়েন্টিতেও।

গতকাল আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে টেস্টের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম এই আত্মবিশ্বাসের ওপর বেশ জোর দিলেন। দুই দলের স্কোয়াড, অধিনায়ক, ফরম্যাট— সব বদলে গেলেও আত্মবিশ্বাস অপরিবর্তিতই থাকছে। আর এটাকেই কাজে লাগিয়ে সেশন বাই সেশন এগিয়ে যেতে চায় দল।

এই আত্মবিশ্বাস যে বাংলাদেশকে বাড়তি শক্তি দেবে, সেটা স্বীকার করলেন পাকিস্তানী অধিনায়ক মিসবাহ-উল হকও। তিনি মানছেন যে, সীমিত ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশের কাছে এই ভয়াবহ ফলাফলের ধাক্কা হজম করা সহজ নয়। তবে বাংলাদেশকে এখন দারুণ শক্তিধর দল হিসেবে স্বীকার করে তিনি অবশ্য বলছেন, তারা টেস্টে নিজেদের সুখস্মৃতিতেই মন দিতে চান।

সুখস্মৃতি বাংলাদেশেরও কম নেই। সর্বশেষ সিরিজে তারাও হোয়াইট ওয়াশ করেছে জিম্বাবুয়েকে।

সেই সাফল্যের কারিগররা টেস্ট সিরিজে দায়িত্ব নিতে ফিরেও আসছেন। আজ তাই মাঠে যথারীতি দেখা যাবে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে না থাকা ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, জুবায়ের হোসেন লিখন, তাইজুল ইসলামদের। এ ছাড়া শাহাদাত হোসেন রাজীবও ধরে রাখতে পারেন টেস্ট একাদশের জায়গা। আজ বাংলাদেশের টেস্টে অভিষেক হয়ে যেতে পারে সৌম্য সরকারের।

তবে সেটা নির্ভর করছে আসলে বাংলাদেশ কজন পেসার নিয়ে খেলবে, তার ওপর। দুই অধিনায়কের কথার সুরেই মনে হলো, তিন পেসার খেলানোর কোনো কারণ দেখছেন না তারা। সে ক্ষেত্রে স্পিন বৈচিত্র্যের লড়াই হতে পারে দুই দলের টেস্ট লড়াইয়ের মূল সুর।

শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here